বিএসএফের গুলিতে যুবক নিহত, পতাকা বৈঠকে সমাধান আসেনি

লালমনিরহাটের আদিতমারীতে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) গুলিতে সুভল চন্দ্র সাদ্দাম (৩৩) নামের এক বাংলাদেশি যুবক নিহত হয়েছেন। বাংলাদেশ থেকে ভারতের ১৫০ গজের অভ্যন্তরে কুচবিহার জেলার শিতাই থানার কৌমারী এলাকায় টহলরত বিএসএফ সদস্যরা কোনরকম নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে গুলি চালিয়ে তাকে হত্যা করে লাশ নিয়ে যায় বলে জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

প্রতক্ষদর্শীরা জানায়, শুধু সুভল চন্দ্র ওরফে সাদ্দাম (৩৩) নয়, তার সাথে আরও একজন গুলিবিদ্ধ হয়। নিহত সাদ্দাম একই ইউনিয়নের ফলিমারী গ্রামের পেলকু চন্দ্রের ছেলে।

বুধবার (১৪ জুলাই) ভোরে উপজেলার ভেলাবাড়ী ইউনিয়নের মহিসতলী সীমান্তের মেইন পিলার ৯২০ এর সাব পিলার ৮ এর ৯২১ আন্তর্জাতিক সীমান্ত পিলারের নিকট এ মির্মম ঘটনা ঘটায় বিএসএফ সদস্যরা। 

ভেলাবাড়ি ইউনিয়নের ৫ নম্বর এলাকার ইউপি সদস্য রজব আলী সময় সংবাদকে জানান, ভেলাবাড়ির দুলালাী সীমান্ত এলাকা দিয়ে গুলিতে নিহত সুভাসসহ আরো বেশ কয়েকজন ভারতের হিজলতলা গ্রাম হয়ে গরু নিয়ে সীমান্ত অতিক্রম করার সময় এ ঘটনা ঘটে। তিনি জানান, আরো বেশ কয়কজন গুলিবিদ্ধ হলে বিএসএফ তাদের টেনে হিচড়ে তাদের আওতায় নিয়ে যায়।

এ ব্যাপারে গতকাল থেকে বিজিবির পক্ষ থেকে ৭৫ বিএসএফ ব্যালিয়নের কৌমারী কোম্পানির সাথে পতাকা বৈঠকের প্রস্তাব পাঠানো হলেও তারা কোন সাড়া দেয়নি। অবশেষে আজ বেলা দেড়টায় ভারতীয় ৭৫ বিএসএফ ব্যাটালিয়নের কোম্পানি কোমান্ডার বাংলাদেশের লালমনিরহট ১৫ বিজিবি ব্যাটালিয়নের মোগলহাট কোম্পানী কোমান্ডার পর্যায়ে এক পতাকা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। 

আন্তর্জাতিক মেইন সীমান্ত পিলার ৯২০ এর ৪ ও ৯২১ এর মধ্যবর্তী জিরো লাইনে প্রায় দু’ঘণ্টাব্যাপী পতাকা বৈঠক অনুষ্ঠিত হলেও তা অমিমাংসিতভাবে শেষ হয় বলে জানান লালমনিরহাট ১৫ বিজিবি ব্যাটালিয়নে অধিনায়ক লেঃ কর্নেল তৌহিদুল আলম। বিএসএফ জানায়, লাশের পরিচয় নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত এ ব্যাপারে কোন সিদ্ধান্ত নেয়া সম্ভব নয়।

পাঠকের মন্তব্য