ভারতে রেকর্ড সুস্থতা, সক্রিয় রোগীর সংখ্যা সাত মাসে সর্বনিম্ন

করোনায় গত বছর মার্চ মাসে ভারত জুড়ে লকডাউন শুরু হয়েছিল। তার পর অবস্থার উন্নতি হওয়ায় লকডাউন তুলে নেওয়া হয়। এরপর এই প্রথম করোনা থেকে সুস্থ হয়ে ওঠার হার ৯৮ দশমিক ৭ শতাংশ পার করল।

গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে করোনা থেকে সেরে উঠেছেন ১৯ হাজার ৩৪১ জন। এই নিয়ে দেশটিতে মোট সুস্থতার সংখ্যা দাঁড়াল তিন কোটি ৩৩ লাখ ৮২ হাজার ১০০। সুস্থতার হার ৯৮ দশমিক ৭ শতাংশ। 

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয়ের দেওয়া বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, ২০২০ সালের মার্চের পর থেকে এটিই ভারতের সর্বোচ্চ সুস্থতার হার। একই সঙ্গে সক্রিয় রোগীর হারও কমেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে সক্রিয় রোগীর সংখ্যা এসে ঠেকেছে মোট রোগীর ০ দশমিক ০৬ শতাংশে। গত বছর মার্চ মাস থেকে হিসেব করলেও এই সংখ্যাটিও সর্বনিম্ন।

গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে নতুন করে ১৬ হাজার ৮৬২ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। তবে দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েছে। বৃহস্পতিবার দেশে ২৪৬ জনের মৃত্যু হয়েছিল। শুক্রবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয়ের পরিসংখ্যান অনুযায়ী গত ২৪ ঘণ্টায় ৩৭৯ জনের মৃত্যু হয়েছে।
 
এদিকে দেশটিতে বেড়েছে টিকাকরণের হার। গত ২৪ ঘণ্টায় ৩০ লাখ ২৬ হাজার ৪৮৩ জনের টিকাকরণ করা হয়েছে। করোনা পরীক্ষা করা হয়েছে ১১ লাখ ৮০ হাজার ১৪৮ জনের। সংক্রমণের হার ১ দশমিক ৪৩ শতাংশ।

বিশ্বব্যাপী করোনার পরিসংখ্যান রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডওমিটারের তথ্যানুযায়ী, করোনায় এখন পর্যন্ত সংক্রমণ ছাড়িয়েছে ২৪ কোটি, মৃত্যু দাঁড়িয়েছে প্রায় ৪৯ লাখ আর সুস্থ হয়েছেন পৌনে ২২ কোটি মানুষ।

করোনায় এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ও মৃত্যু হয়েছে বিশ্বের ক্ষমতাধর দেশ যুক্তরাষ্ট্রে। তালিকায় শীর্ষে থাকা দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনায় সংক্রমিত হয়েছে ৪ কোটি ৫৬ লাখ ৩৯ হাজার ১২ জন। মৃত্যু হয়েছে ৭ লাখ ৪১ হাজার ৮৯৩ জনের।

আক্রান্তে তৃতীয় ও মৃত্যুতে দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা ব্রাজিলে এখন পর্যন্ত মোট সংক্রমিত হয়েছেন ২ কোটি ১৬ লাখ ১২ হাজার ২৩৭ জন এবং এখন পর্যন্ত মোট মৃত্যু হয়েছে ৬ লাখ ২ হাজার ২০১ জনের।

আক্রান্তের দিক থেকে চতুর্থ স্থানে থাকা যুক্তরাজ্যে এখন পর্যন্ত করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ৮৩ লাখ ১৭ হাজার ৪৩৯ জন। এর মধ্যে মারা গেছেন এক লাখ ৩৮ হাজার ২৩৭ জন।

পঞ্চম স্থানে থাকা রাশিয়ায় এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৭৮ লাখ ৯২ হাজার ৯৮০ জন। মারা গেছেন ২ লাখ ২০ হাজার ৩১৫ জন।

আক্রান্তের তালিকায় তুরস্ক ষষ্ঠ, ফ্রান্স সপ্তম, ইরান অষ্টম, আর্জেন্টিনা নবম এবং স্পেন দশম অবস্থানে রয়েছে। এ তালিকায় বাংলাদেশে অবস্থান দাঁড়িয়েছে ২৯তম।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান থেকে করোনাভাইরাস সংক্রমণ শুরু হয়। এখন পর্যন্ত বাংলাদেশসহ বিশ্বের ২২৩টি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে কোভিড-১৯।

পাঠকের মন্তব্য