‘বিচারাধীন বিষয়ে মিডিয়া দোষী বানিয়েছে, মানসিক যন্ত্রণা হচ্ছে’

চার সপ্তাহের জন্য গ্রেপ্তারির হাত থেকে রেহাই পেয়েছেন বলিউডের জনপ্রিয় নায়িকা শিল্পা শেঠির স্বামী ও ব্যবসায়ী রাজ কুন্দ্রা। তার আবেদনে সাড়া দিয়ে গত বুধবার তেমনই নির্দেশ দিয়েছে ভারতীয় সুপ্রিম কোর্ট। এতে কিছুটা স্বস্তি ফিরতেই এই মামলার প্রসঙ্গ তুলে প্রথমবার নিজের বিবৃতি দিলেন শিল্পা শেঠির ব্যবসায়ী স্বামী। 

তিনি তার বক্তব্যে এমন অনেক কথা বলেছেন, যা থেকে বোঝা যায় মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়া খবরে তিনি নিজেই বিভ্রান্ত। তার দাবি, কোনও দিনই পর্নোগ্রাফি তৈরি এবং তা ছড়িয়ে দেওয়ার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন না তিনি। বিচারাধীন বিষয়ে সংবাদমাধ্যম তাকে দোষী বানিয়েছে, এতে মানসিক যন্ত্রণা হচ্ছে।’

গত কয়েক মাস শিল্পা শেঠি এবং রাজ কুন্দ্রার পরিবারের জন্য খুবই কঠিন সময় ছিল। পর্নোগ্রাফি মামলায় গ্রেপ্তার হওয়ার পর বেশ কয়েকদিন জেলে কাটাতে হয় রাজকে। অবশেষে জামিনে মুক্তির পর স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেন রাজ কুন্দ্রা। তিনি মিডিয়াকে তার ব্যক্তিগত বিষয়ে হস্তক্ষেপ না করার এবং তার গোপনীয়তাকে সম্মান করার আবেদন জানিয়েছেন।

রাজ কুন্দ্রা বলেন, ‘অনেক চিন্তাভাবনার পর আমি বুঝতে পারছি যে, সব বিভ্রান্তিকর এবং দায়িত্বজ্ঞানহীন বক্তব্য এবং অনেক আর্টিকেলে আমার নীরবতাকে দুর্বলতা হিবেবে বিবেচনা করা হচ্ছে। আমি বলতে চাই যে আমি আমার জীবনে 'পর্নোগ্রাফি' তৈরি করিনি। এমনকি ডিস্ট্রিবিউটও করিনি। এই পুরো পর্বটি একটি উইচ হান্ট ছাড়া আর কিছুই নয়।’

তিনি বলেন, ‘যেখানে আমাকে ফাঁসানোর চেষ্টা করা হয়েছে। বিষয়টি বিচারাধীন তাই আমি ব্যাখ্যা করতে পারব না, তবে আমি বিচারের মুখোমুখি হতে প্রস্তুত এবং বিচার ব্যবস্থার প্রতি আমার পূর্ণ আস্থা আছে, যেখানে সত্যের জয় হবে।’

এসময় সংবাদমাধ্যমের কারণে নিজের মানসিক দুরবস্থার কথাও তুলে ধরেন রাজ কুন্দ্রা। বলেন, ‘দুর্ভাগ্যবশত, মিডিয়া ইতোমধ্যেই আমাকে 'দোষী' বলে ঘোষণা করেছে এবং বিভিন্ন স্তরে আমার মানবিক ও সাংবিধানিক অধিকার লঙ্ঘনের জন্য আমি ক্রমাগত মানসিক যন্ত্রণায় ভুগছি। মানুষের আমার প্রতি ঘৃণা বাড়ছে।’

তিনি বলেন, ‘আমি বিশ্বাস করি যে প্রত্যেক ব্যক্তির মর্যাদার সঙ্গে বাঁচার অধিকার আছে এবং আমি সবার কাছে এই অনুরোধ করছি। আমার অগ্রাধিকার সবসময় আমার পরিবার ছিল, এই সন্ধিক্ষণে আমি সেদিকেই মনোযোগ দিতে চাই।’

পাঠকের মন্তব্য