চলতি বছর সর্বোচ্চ কর দিবেন ইলন মাস্ক

এ বছর ১১শ কোটি ডলারের বেশি ট্যাক্স দিবেন বলে জানিয়েছেন বিশ্বের সবচেয়ে ধনী ব্যক্তি ইলন মাস্ক। নিজের অ্যাকাউন্ট থেকে টুইট করে এ কথা জানান তিনি।

সম্প্রতি ট্যাক্সের বিষয়ে সামাজিক মাধ্যমে বিতর্কে জড়ান ইলন। চলতি সপ্তাহে তার ট্যাক্সের বিষয়ে সমালোচনা করে টুইট করেন ডেমোক্র্যাটিক সিনেটর এলিজাবেথ ওয়ারেন। তিনি টুইট করেন, “আসুন কারচুপি করা ট্যাক্স কোডটি পরিবর্তন করি যাতে 'দ্য পার্সন অফ দ্য ইয়ার' প্রকৃতপক্ষে কর প্রদান করে এবং অন্য সবাইকে ফ্রিলোড করা বন্ধ করে।”

ব্লুমবার্গ বিলিয়নেয়ার্স ইনডেক্স অনুযায়ী, তার মোট সম্পদের পরিমাণ ২৪৩ বিলিয়ন ডলার। মাস্ক ২০১৩ সালে রয়্যাল সোসাইটির সহযোগী নির্বাচিত হয়েছিলেন এবং টাইম ম্যাগাজিনের ১০০ প্রভাবশালী ব্যক্তিদের তালিকায় ২০১০, ২০১৩ এবং ২০১৮ সালে তালিকা ভুক্ত হয়েছেন। থমলুয়াং গুহা উদ্ধারে অবদানের জন্য অর্ডার অফ দ্য ডিরেকগুনাভর্নের মতো আরও অনেক পুরস্কার পেয়েছেন ইলন।

ইলন মাস্ক কত কর দেন এবং কর ফাঁকি দেন কিনা এসব বিষয় নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চলছে আলোচনা। এর মাঝেই নিজের কর দেওয়ার বিষয়টি জানিয়ে দিয়েছেন এই ধনকুবের।

গত সপ্তাহে বিশ্বব্যাপী আরও একটি খবর চাওড় হয় ইলন মাস্কের। মার্কিন সাময়িকী টাইমের নজরে ২০২১ সালের বর্ষসেরা ব্যক্তিত্ব বা ‘পারসন অব দ্য ইয়ার’ হয়েছেন টেসলার  সিইও ইলন মাস্ক। সোমবার (১৩ ডিসেম্বর) এ ঘোষণা দেয় টাইম কর্তৃপক্ষ।

করোনাকালীন ২০২১ সাল অনেকের জন্য সর্বনাশ ডেকে আনলেও ইলন মাস্কের জন্য ভালোই যাচ্ছে। এ বছর তার কোম্পানি বিশ্বের সবচেয়ে দামী ইলেক্ট্রিক গাড়ি নির্মাতা হয়ে উঠেছে। চলতি বছর টেসলার বাজারমূল্য এক ট্রিলিয়ন বা এক লাখ কোটি ডলারের বেশি বেড়েছে, যার ফলে এর মূল্য দাঁড়িয়েছে ফোর্ড মোটর ও জেনারেল মোটরসের সম্মিলিত মূল্যের চেয়েও বেশি। 

একই বছর মাস্কের রকেট কোম্পানি পুরোটাই বেসরকারি ক্রু নিয়ে মহাকাশ ঘুরে এসেছে। ব্রেইন-চিপ স্টার্টআপ নিউরালিংক এবং অবকাঠামো নির্মাতা বোরিং কোম্পানির নেতৃত্বও তার হাতে।
 

পাঠকের মন্তব্য