স্বপ্নের সেতুতে উঠতে আর ৪ শতাংশের অপেক্ষা

পদ্মা সেতু প্রকল্পে চলছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি। এগিয়ে নেয়া হচ্ছে কার্পেটিংসহ খুঁটিনাটি কাজ। যানচলাচল স্বাভাবিক রাখতে সেতুর দুই পাড়ে তৈরি হচ্ছে সড়ক নেটওয়ার্ক। এগিয়ে চলছে নদী শাসনও। এরই মধ্যে মূল সেতুর অগ্রগতি প্রায় ৯৬ শতাংশ। আর সার্বিক অগ্রগতি সাড়ে ৮৯ শতাংশ।

দেশের কোটি কোটি মানুষের স্বপ্নের পদ্মা সেতুর কাজ এখন শেষ পর্যায়ে। দক্ষিণাঞ্চলের কোটি কোটি মানুষের ভাগ্য বদলে দেয়ার পদ্মা সেতু চালু হচ্ছে চলতি বছরেই। তাই সেতুর জৌলস ছড়াচ্ছে চারিদিকে।

চীনের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি (এমবিইসি) দ্রুতগতিতে সেতুর কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। নানা প্রতিকূলতা কাটিয়ে এখন শুধু স্বপ্নধরার হাতছানি। 

নতুন বছরে বিশেষ উদ্যোমে চলছে সেতুর শেষ পর্যায়ের কাজ। সেতুটি খুলে দেয়ার আশায় এখন দিন গুণছেন পদ্মা পারের মানুষ। এরই মধ্যে মূল সেতুর অগ্রগতি প্রায় ৯৬ শতাংশ। অর্থাৎ মূল সেতুর কাজের আর বাকি মাত্র ৪ শতাংশ। 

সেতুর পাশাপাশি সেতুতে ওঠানামা করাসহ যানচলাচল স্বাভাবিক রাখতে সড়ক নেটওয়ার্ক তৈরির কাজও এগিয়ে চলছে। কার্পেটিংসহ খুঁটিনাটি কাজের পাশাপাশি নদী শাসনের কাজও দ্রুত এগুচ্ছে।

পদ্মা বহুমুখী সেতুর প্রকল্প পরিচালক মো. শফিকুল ইসলাম জানান, টার্গেট সময়ের মধ্যেই পদ্মা সেতু উদ্বোধন করা হবে। এখন পিচ ঢালাইয় ও সংযোগ সড়কের কাজ চলছে। সেটা শেষ হলেই শেষ।

তিনি জানান, সেতুর মাধ্যমে দুই পারের গ্যাস পাইপলাইনের কাজের অগ্রততি ৭২ শতাংশ। আর ৪০০ কেভি টিএল প্ল্যাটফর্মের অগ্রগতি ৬৮ শতাংশের বেশি।

স্বপ্নের পদ্মা সেতু ঘিরে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষের স্বপ্নপূরণ হতে চলছে। মানুষের ভাগ্যবদলে নতুন দিগন্ত উন্মোচন করছে সেতুটি। খুলছে অর্থনীতি ও সামাজিক উন্নয়নের দ্বার। আরও সহজ হবে রাজধানীর সঙ্গে দক্ষিণাঞ্চলের যোগাযোগ। ফলে দক্ষিণাঞ্চলের অর্থনীতির চাকা ঘোরার পাশাপাশি বাড়বে কর্মসংস্থান। এ অঞ্চল হবে দেশের শক্তিশালী অর্থনৈতিক জোন। 

পাঠকের মন্তব্য