শাবিপ্রবিতে হামলার বিচার চাইল বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর শিক্ষার্থীরা

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (শাবিপ্রবি) আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের উপর পুলিশি হামলার প্রতিবাদ ও সুষ্ঠ  বিচারের দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে বিক্ষোভ সমাবেশ হয়েছে। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় এবং বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ওই হামলাকে ন্যাক্কারজনক অ্যাখ্যা দিয়ে উপাচার্যের পদত্যাগ দাবি করেন।

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়

সোমবার (১৭ই জানুয়ারি) বেলা সাড়ে ১১ টায় বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ফটকের সামনে সাধারণ শিক্ষার্থীদের ব্যানারে বিক্ষোভ কর্মসূচি শুরু হয়।

এসময় শাবিপ্রবি উপাচার্যের পদত্যাগ দাবি করে সমাবেশে পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের ২০১৮-১৯ সেশনের শিক্ষার্থী সুজন মাহমুদ বলেন, ‘শাবিপ্রবিতে আমাদের ভাই-বোনদের উপর যে বর্বরোচিত হামলা করা হয়েছে তা ইতিহাসে বিরল। এই দেশ কোনো ভিসির নয়। শিক্ষার্থীদের যৌক্তিক আন্দোলনকে পণ্ড করতে কুলাঙ্গার প্রশাসনের এই ন্যাক্কারজনক হামলা।’ 

অবস্থান কর্মসূচি শেষে বরিশাল-পটুয়াখালী মহাসড়কে একটি মিছিল বের করে পুনরায় ক্যাম্পাসে ফিরে আসে শিক্ষার্থীরা।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়:

শাবিপ্রবি শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশি লাঠিচার্জের প্রতিবাদে রোববার (১৬ জানুয়ারি) রাত ৮টায় বিক্ষোভ মিছিল করেছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীরা। ছাত্র ইউনিয়ন ও সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট জাবি শাখার যৌথ নেতৃত্বে মিছিলে অর্ধশতাধিক শিক্ষার্থী অংশ নেয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন চত্বর থেকে মিছিলটি শুরু হয়ে বিভিন্ন সড়ক ও ভবন প্রদিক্ষণ করে কেন্দ্রীয় ক্যাফেটেরিয়ায় এসে শেষ হয়। এসময় শিক্ষার্থীদের সকল নায্য দাবি মেনে নেওয়ার দাবি জানানো হয়।

মিছিলে সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি শোভন রহমান বলেন, ‘আগে শিক্ষকরা শিক্ষার্থীদের রক্ষা করতেন তাদের জীবন দিয়ে। কিন্তু বর্তমানে উপাচার্যরা তাদের দুর্নীতি, অনিয়ম ঢাকার জন্য পুলিশকে সাধারণ শিক্ষার্থীদের ওপর লেলিয়ে দিতে দ্বিধা করেনা।’

এসময় তিনি এই হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়ে শাবিপ্রবি শিক্ষার্থীদের তিন দফা দাবি অবিলম্বে মেনে নিতে আহ্বান জানান। বলেন, ‘এটা শুধু শাবিপ্রবির শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা নয়; দেশের সকল শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা।’ শিক্ষার্থীদের দাবি মেনে না নিলে প্রতিবাদ আরো জোরদার করা হবে বলেও হুশিয়ারি দেন শোভন।

বিশ্ববিদ্যালয় সাংস্কৃতিক জোটের তাপসী দে প্রাপ্তি বলেন, যেখানে ছাত্রীরা হলের নিরাপত্তা ও অব্যবস্থাপনা নিয়ে বলতে যেয়ে শিক্ষক ও উপাচার্যের স্বৈরাচারী আচরণের মুখোমুখি হন, সেখানে উপাচার্যের গদিতে বসে থাকার কোন অধিকার নেই।

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে (ইবি) বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে শাখা ছাত্র ইউনিয়ন। রোববার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের জিয়া মোড় এলাকা থেকে বিক্ষোভ মিছিল শুরু হয়ে ক্যাম্পাসের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে একই স্থানে এসে সমবেত হয় শিক্ষার্থীরা। পরে সেখানে সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় শাখা ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক পিয়াস পাণ্ডের সঞ্চালনায় বক্তারা বলেন, যখন শিক্ষার্থীরা যৌক্তিক দাবি নিয়ে দাড়িয়েছিল তখন প্রশাসনসহ ক্ষমতাসীন ছাত্র সংগঠন শিক্ষার্থীদের উপর চড়াও হয়। সারাদেশে যে অনিয়ম অবিচার চলছে এরই ধারাবাহিকতায় শাবিতে শিক্ষার্থীদের উপর হামলা করা হয়েছে। 

এই বিক্ষোভ সমাবেশ থেকে শাবিপ্রবি প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনকে ধিক্কার জানানো হয় এবং অনতিবিলম্বে এই হামলার সুষ্ঠু বিচার দাবি করেন শিক্ষার্থীরা।

পাঠকের মন্তব্য