বিভাগীয় প্রধান থেকে অপসারিত বেরোবির সেই শিক্ষিকা

সহকর্মী ও শিক্ষার্থীদের সঙ্গে খারাপ আচরণসহ বিভিন্ন অভিযোগের প্রমাণ পাওয়ায় বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষিকা জনি পারভীনকে বিভাগীয় প্রধানের পদ থেকে অপসারণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সিন্ডিকেট।

সোমবারে (১৭ জানুয়ারি) রাতে অনুষ্ঠিত বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ নীতি নির্ধারনী ফোরাম সিন্ডিকেট সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

জানা যায়, জনি পারভীনকে বিভাগীয় প্রধানের পদ থেকে অপসারণ ও শাস্তির দাবির প্রেক্ষিতে আন্দোলনের মুখে প্রশাসন থেকে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছিলো। সেই কমিটি উপাচার্যের কাছে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছেন। যেখানে সহকর্মী ও শিক্ষার্থীদের সঙ্গে খারাপ আচরণ ও অসহযোগীতার প্রমাণ পাওয়া গেছে বলে বলা হয়েছে। 

এরপরই প্রতিবেদনের উপর ভিত্তি করে সিন্ডিকেট জনি পারভীনকে বিভাগীয় প্রধানের পদ থেকে অপসারণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

এর আগে গত বছরের ১৯ ডিসেম্বর থেকে বিভাগীয় প্রধান অপসারণের দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে লাগাতার অবস্থান কর্মসূচি পালন করে আসছিলেন অর্থনীতি বিভাগের চয় জন শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা। এরপর চলতি বছরের ৩ জানুয়ারি সকাল ১০টা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত উপাচার্যের কার্যালয়ের সামনে আমরণ অনশন কর্মসূচি পালন করেন তারা।

শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, অর্থনীতি বিভাগ প্রতিষ্ঠার পর থেকেই সেশনজটমুক্ত ও আইকিউএসি রেটিংয়ে প্রথম স্থানপ্রাপ্ত বিভাগ ছিল। কিন্তু বিভাগের বর্তমান প্রধান জনি পারভীন বিভাগের দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই তার লাগাতার অনুপস্থিতি ও  অসহযোগিতার কারণে বিভাগের শিক্ষার্থীরা দীর্ঘ সেশনজটে পড়ে যায়। করোনাকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগ অনলাইনে ক্লাস চালু করলেও তিনি দেড় বছরেরও বেশি সময় বিভাগে কোন সভা আহ্বান করেননি। অন্যদিকে সহকর্মী ও শিক্ষার্থীদের সঙ্গে অসদাচরণ করে আসছিলেন।

তবে অর্থনীতি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান জনি পারভীন প্রথম থেকেই সব অভিযোগ অস্বীকার করে আসছিলেন। বলছিলেন, তিনিই শিক্ষকদের কাছ থেকে অসহযোগিতা ও হেনস্থার শিকার।

পাঠকের মন্তব্য