সরকারি এতিম খানায় বড় হয়েছেন রওশন আরা  ।  আপন আলোয় নিজেকে মেলে ধরেছেন বাবা-মা, ভাই-বোন ছেড়ে অন্যরকম পরিবেশে বেড়ে ওঠা রওশন। এসএসসি ও এইচএসসিতে জিপিএ-৫ পাওয়া রওশন আরা আলো ছড়াচ্ছেন বিশ্ববিদ্যালয়েও । স্বপ্ন দেখেন বিসিএস ক্যাডার হওয়ার। তবে অর্থের অভাবে তার স্বপ্ন  থমকে যাওয়ার শঙ্কাও রয়েছে তার। তাই সরকারের কাছে বিশেষ অনুদানের দাবি জানিয়েছেন তিনি ।

জানা যায়, খুলনা নগরীর পাইওনিয়ার কলেজ মোড়ে অবস্থিত সরকারি শিশু পরিবারে (বালিকা) বড় হয়েছেন রওশন আরা। এইচএসরি পর তিনি ভর্তি হন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগে। অদম্য এই সংগ্রামী ছাত্রী অনার্স শেষ বর্ষে অধ্যয়ন করছেন। শিশুকালে এতিমখানায় আসা রওশন অারার পারিবারিক পরিচয় নিয়ে কোন আগ্রহ নেই। নিজের পরিচয়েই বড় হতে চান তিনি।

রওশন আরা বলেন, সরকারি শিশু পরিবারের প্রতি আমি কৃতজ্ঞ। তাদের তত্ত্বাবধানে এবং আন্তরিক সহযোগিতায় আমি এসএসসি, এইচএসসিতে জিপিএ-৫ পেয়েছি। এরপর খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজ বিজ্ঞান বিভাগে পড়ার চান্স পেয়েছি। বর্তমানে শেষ সেমিষ্টারে আছি আমি। চলতি বছরের মাঝামাঝিতে আমার অনার্স শেষ হচ্ছে। আমি ভবিষ্যতে বিসিএস দিয়ে পুলিশে যোগদান করতে চাই।

সরকারি শিশু পরিবারের উপ-তত্ত্বাবধায়ক (অতিরিক্ত দায়িত্ব) আবিদা আফরিন সাংবাদিকদের বলেন, এখানকার ৩২জন বালিকা বর্তমানে সরকারি চাকরি করছেন। রওশন আরাও একসময় ভালো চাকরি করবে এমন প্রত্যাশা তার।

উল্লেখ্য, ১৯৭২ সালে খুলনায় দশমিক ৪৪ শতক জমির ওপর প্রতিষ্ঠিত হয় সরকারি শিশু পরিবার। এখন পর্যন্ত প্রায় ১৫’শ নিবাসী এখান থেকে সেবা নিয়েছেন।

SHARE