একটি মসজিদে জুমার নামাজের সময় এলোপাতাড়ি গুলিতে ৯ থেকে ২৭ জন নিহত হয়েছেন বলে নিউজিল্যান্ডের  স্থানীয় পত্রিকার খবরে বলা হয়েছে। ২৮ বছর বয়সী একজন অস্ট্রেলীয় যুবক হামলাকারী ।

হামলার সময় মসজিদটিতে নামাজ পড়তে গিয়েছিলেন বাংলাদেশের জাতীয় ক্রিকেট দল ।  তারা নিরাপদে সরে আসতে সক্ষম হয়েছেন।

বার্তা সংস্থা এএফপিকে এ সংবাদ জানিয়েছেন নিউজিল্যান্ডে অবস্থানরত বাংলাদেশি এক ক্রীড়া সাংবাদিক , ক্রাইস্টচার্চের আল নূর মসজিদে যখন তারা উপস্থিত হন, তখন সেখানে এলোপাতাড়ি গুলি চলছিল। সতর্ক করার পরেই হতবিহ্বল খেলোয়াড়রা বাসের ভেতর চলে যান এবং তারা ফ্লোরে শুয়ে পড়েন।

নিউজিল্যান্ড সফরে যেখানে তাদের শেষ টেস্ট ম্যাচ খেলার কথা, তার কাছেই মসজিদটির অবস্থান। খবর মেইল অনলাইন ও এএফপির।

বাংলাদেশ ক্রিকেটের ফেসবুক পেজে বলা হয়েছে, বন্দুক হামলার পর নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সব সদস্য নিরাপদে হোটেলে ফিরে এসেছেন। খেলোয়াড় ও টিম ম্যানেজমেন্টের সঙ্গে বিসিবি যোগাযোগ অব্যাহত রাখছে।

বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের মুখপাত্র বলেছেন, ক্রিকেট দলের সদস্যরা নিরাপদে রয়েছেন। তবে তারা মানসিকভাবে আহত হয়েছেন।

ওপেনিং ব্যাটসম্যান তামিম ইকবাল টুইটারে বলেছেন, গোলাগুলি থেকে পুরো ক্রিকেট দল নিরাপদে ফিরতে পেরেছেন। এ এক ভীতিপ্রদ অভিজ্ঞতা, দয়া করে সবাই আমাদের জন্য দোয়া করবেন।

মুশফিকুর রহিম বলেন, আলহামদুলিল্লাহ, ক্রাইস্টচার্চের মসজিদে গোলাগুলি থেকে আল্লাহ আজ আমাদের রক্ষা করেছেন। আমরা সত্যিই খুব ভাগ্যবান। এমন ঘটনা আর দেখতে চাই না। সবাই আমাদের জন্য দোয়া করবেন।

নিউজিল্যান্ডে অবস্থানরত বাংলাদেশি এক ক্রীড়া সাংবাদিক বার্তা সংস্থা এএফপিকে জানিয়েছেন, ক্রাইস্টচার্চের আল নূর মসজিদে যখন তারা উপস্থিত হন, তখন সেখানে এলোপাতাড়ি গুলি চলছিল। সতর্ক করার পরেই হতবিহ্বল খেলোয়াড়রা বাসের ভেতর চলে যান এবং তারা ফ্লোরে শুয়ে পড়েন।

দেশটির সাউথ আইল্যান্ডে আল নূর মসজিদে স্বয়ংক্রিয় রাইফেল দিয়ে অন্তত ৫০টি গুলি করা হয়েছে।

সামাজিকমাধ্যমে মসজিদের ভেতর থেকে গোলাগুলির লাইভ ভিডিও সম্প্রচার করা হয়। স্থানীয় সময় দুপুর দেড়টার দিকে যখন এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে, তখন শুক্রবারের জুমার নামাজ চলছিল।

SHARE